সব
ঢাকা Translate Bangla Font Problem

কবি সুফিয়া কামালের ১০৭তম জন্মবার্ষিকী আজ

AUTHOR: Amarbangla Desk
POSTED: Wednesday 20th June 2018at 5:33 pm
348 Views

ডেস্ক রিপোর্টঃ বাঙালি নারী জাগরণের অন্যতম অগ্রদূত হলেন কবি বেগম সুফিয়া কামাল। আজ তাঁর ১০৭ তম জন্মবার্ষিকী। তিনি ১৯১১ সালের ২০ জুন বরিশালের শায়েস্তাবাদে মামার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। বরিশালের শায়েস্তাবাদের এক অভিজাত পরিবারে জন্ম সুফিয়া কামালের।

বাংলার নারী জাগরণে বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের পরই যার নাম নিতে হয়, তিনিই হলেন কবি সুফিয়া কামাল। বলা যায়, বেগম রোকেয়ার ভাব শিষ্য ছিলেন কবি সুফিয়া কামাল।

সাহিত্যচর্চার মাধ্যমে নারীমুক্তি, মানবমুক্তি ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় নিরলস কাজ করে গেছেন তিনি। একুশে পদক, স্বাধীনতা পদকসহ ৫০টির’ও বেশি পুরস্কার পেয়েছেন। তার পিতার নাম সৈয়দ আব্দুল বারী এবং মাতার নাম সৈয়দা সাবেরা খাতুন।। রক্ষণশীল মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করলেও মা সাবেরা বেগমের কাছেই বাংলা পড়তে শেখেন। তার রক্ষণশীল পরিবারে বাংলা ভাষার প্রবেশ নিষেধ থাকলেও, অনেকটা স্বশিক্ষায় শিক্ষিত হয়েছেন এই মহিয়সী নারী।

১৯২৬ সালে সওগাত পত্রিকায় প্রথম কবিতা ‘বাসন্তী’ প্রকাশের মধ্য দিয়ে কবি সুফিয়া কামালের কবি প্রতিভার প্রকাশ ঘটে। তাঁর রচিত সাহিত্যের মধ্যে রয়েছে কবিতা, গল্প ও ভ্রমণ কাহিনী।

তিরিশের দশকে কলকাতায় অবস্থানকালে বাংলা সাহিত্যের উজ্জ্বল নক্ষত্র যেমন রবীন্দ্রনাথ, নজরুল, শরৎচন্দ্র প্রমুখের দেখা পান। মুসলিম নারীদের সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করার জন্য বেগম রোকেয়ার প্রতিষ্ঠিত সংগঠন ‘আঞ্জুমানে খাওয়াতিনে ইসলামে’ রোকেয়ার সঙ্গে সুফিয়া কামালের পরিচয় হয়। বেগম রোকেয়ার চিন্তাধারা ও প্রতিজ্ঞা তাঁর মধ্যেও সঞ্চারিত হয়, যা তাঁর জীবনে সুদূরপ্রসারী প্রভাব ফেলে।

সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি তাঁর সাহিত্যচর্চা চলতে থাকে। ১৯৩৭ সালে তাঁর গল্পের সংকলন কেয়ার কাঁটা প্রকাশিত হয়। ১৯৩৮ সালে তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ সাঁঝের মায়ার মুখবন্ধ লেখেন কাজী নজরুল ইসলাম। বইটি বিদগ্ধজনের প্রশংসা কুড়ায় যাদের মাঝে ছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।

সুফিয়া কামালে রচিত ‘একাত্তরের ডায়েরি’ একাত্তরে বাঙালি জীবনের অকথিত চিত্র তুলে ধরেছে।

কবি সুফিয়া কামাল তাঁর সাহিত্য চর্চার পাশাপাশি নারীমুক্তি, মানবমুক্তি এবং গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় নিরলস কাজ করে গেছেন। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনে তিনি সক্রিয় ভূমিকা রেখেছেন। ১৯৬১ সালে পাকিস্তান সরকার কর্তৃক রবীন্দ্রসঙ্গীত নিষিদ্ধের প্রতিবাদে সংগঠিত আন্দোলনেও যোগ দেন। সুফিয়া কামাল ৬৯’এর গণঅভ্যুত্থানে অংশ নেন। একাত্তরের উত্তাল মার্চে অসহযোগ আন্দোলনেও নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি।

সুফিয়া কামাল পাকিস্তান সরকার কর্তৃক ‘তমখা এ ইমতিয়াজ’ উপাধি বর্জন করেন। তিনি ছিলেন একজন একনিষ্ঠ সংগঠক। ১৯৭০ সালে বাঙালির স্বাধীকার আন্দোলনের ডামাডোলের মধ্যেই তিনি মহিলা পরিষদ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৫৬ সালে প্রতিষ্ঠা করেন শিশুদের সংগঠন কচি-কাঁচার মেলা। তিনি দেশ বিভাগের আগে ‘বেগম’ পত্রিকার সম্পাদনা করেন।

স্বাধীন বাংলাদেশে নারী জাগরণ ও সম-অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে ভূমিকা রেখেছেন তিনি। বাংলার প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামে সুফিয়া কামালের ছিল আপসহীন ভূমিকা। নারীদের সংগঠিত করে মানবতা, অসাম্প্রদায়িকতা, দেশাত্মবোধ এবং গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ সমুন্নত রাখতে তিনি ছিলেন সর্বদা সচেষ্ট।

পাশাপাশি সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদের বিরুদ্ধে তিনি ছিলেন আপসহীন। কবি সুফিয়া কামাল ১৯৯৯ সালের ২০ নভেম্বর মৃত্যু বরণ করেন। তিনিই প্রথম বাঙালি নারী যাঁকে মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়।

কবি পুত্র শাহেদ কামাল শামীম এখনো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে অধ্যাপনা করেন।


সর্বশেষ খবর